ঢাকা ০৪:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পলাশবাড়ীর কালুগাড়ী কমিউনিটি ক্লিনিক রাস্তার বেহাল দশা

Exif_JPEG_420

জেলার পলাশবাড়ী পৌরসভার কালুগাড়ী গ্রামের কমিউনিটি ক্লিনিক রাস্তাটি একটু বৃষ্টিতেই চলার অনুপযোগী হয়ে পড়ে ।
 প্রতিনিয়ত শত শত  সেবা নিতে আসে অসুস্থ রোগীরা পরে বিপাকে। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পৌরসভা ২০ বছরের বেশি সময় হলো এই রাস্তাটিতে পরেনি এক চাপা মাটি। এভাবেই বুকভরা কষ্টের কথা বলেছিল পলাশবাড়ী পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ড বাসিন্দারা।
 কালুগাড়ী (বড়বাড়ী) গ্রামে প্রায় হাজারো মানুষের বসবাস কিন্তু রাস্তার অবস্থা একদম চলাচলের অনুপযোগী। পাকা রাস্তা থেকে এই কাঁচা রাস্তা টুকু আসতে তাদের পরতে হয় বিপাকে।
ক্লিনিকের এই রাস্তায় গর্ভবতী অসুস্থ  মহিলারাই আসে বেশী তাই এ গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি পাকাকরণ করা প্রয়োজন। শুধু কি তাই অনেক মা তাদের ছোট ছোট সন্তানদের কে নিয়ে আসতেও ভয় পায় এই কাঁদার ভিতর।
এবিষয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলর সুমন মন্ডল বলেন, আমি খড়া হলে রবিশ দিব। তবে এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি স্থায়ীকরণ করা যায় কি না এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমি মাননীয় মেয়রের সঙ্গে কথা বলবো দেখি কি করা যায়।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

Daily Naba Bani

মিডিয়া তালিকাভুক্ত জাতীয় দৈনিক নববাণী পত্রিকার জন্য সকল জেলা উপজেলায় সংবাদ কর্মী আবশ্যকঃ- আগ্রহীরা আজই আবেদন করুন। মেইল: 24nababani@gmail.com
জনপ্রিয় সংবাদ

বান্দরবানকে স্মার্ট পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে: ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি আপেল মাহমুদ।

পলাশবাড়ীর কালুগাড়ী কমিউনিটি ক্লিনিক রাস্তার বেহাল দশা

আপডেট সময় ০১:৫৭:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪
জেলার পলাশবাড়ী পৌরসভার কালুগাড়ী গ্রামের কমিউনিটি ক্লিনিক রাস্তাটি একটু বৃষ্টিতেই চলার অনুপযোগী হয়ে পড়ে ।
 প্রতিনিয়ত শত শত  সেবা নিতে আসে অসুস্থ রোগীরা পরে বিপাকে। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পৌরসভা ২০ বছরের বেশি সময় হলো এই রাস্তাটিতে পরেনি এক চাপা মাটি। এভাবেই বুকভরা কষ্টের কথা বলেছিল পলাশবাড়ী পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ড বাসিন্দারা।
 কালুগাড়ী (বড়বাড়ী) গ্রামে প্রায় হাজারো মানুষের বসবাস কিন্তু রাস্তার অবস্থা একদম চলাচলের অনুপযোগী। পাকা রাস্তা থেকে এই কাঁচা রাস্তা টুকু আসতে তাদের পরতে হয় বিপাকে।
ক্লিনিকের এই রাস্তায় গর্ভবতী অসুস্থ  মহিলারাই আসে বেশী তাই এ গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি পাকাকরণ করা প্রয়োজন। শুধু কি তাই অনেক মা তাদের ছোট ছোট সন্তানদের কে নিয়ে আসতেও ভয় পায় এই কাঁদার ভিতর।
এবিষয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলর সুমন মন্ডল বলেন, আমি খড়া হলে রবিশ দিব। তবে এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি স্থায়ীকরণ করা যায় কি না এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমি মাননীয় মেয়রের সঙ্গে কথা বলবো দেখি কি করা যায়।